বিতর্ক শেখার আসর; বিতর্ক কী এবং কেনো


বিতর্ক শেখার আসর; বিতর্ক কী এবং কেনো Debate
শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতর্ক বিষয়টি বেশ জনপ্রিয়। তবে অনেক শিক্ষার্থীর আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও এ বিষয়ে ধারণা না থাকায় বিতর্ক মঞ্চে বিপাকে পড়তে হয়। তাই বিতর্কের প্রতি আগ্রহী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বিতর্ক নিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের বিতর্ক ক্লাব ‘দর্শন বিতর্ক ধারা’র সভাপতি এস এ আর ছিবগাতুল্লাহ। বিডিলাইভের পাঠকদের জন্য এটি কয়েকটি পর্বে প্রকাশ করা হবে..আজ রয়েছে প্রথম পর্ব

বিতর্ক হলো একটি প্রাচীনতম শিল্প (Debate is an ancient art)। বিশ্বের দৃঢ়, অভিজাত, শক্তিশালী, সৃজনশীল, সমাদৃত ও যৌক্তিক শিল্পসমুহের মধ্যে এটি অন্যতম। ধারণা করা হয় খৃষ্টপূর্ব ৪৮৯ প্রাচীন গ্রীসের সোফিস্ট (Sophist) সম্প্রদায়ের মাধ্যমে বিতর্কের প্রকাশ। সোফিস্ট প্রোটাগোরাস (Protagoras- 490-420 BC) এর মাধ্যমে বিতর্কের গোড়াপত্তন  এবং মহামতি দার্শনিক সক্রেটিসের (470-399 BC) মাধ্যমে বিতর্ক জনপ্রিয়তা এবং প্রায়োগিকতা ও গ্রহণযোগ্যতা লাভ করে।

বিতর্ক হলো কথার যৌক্তিক যুদ্ধ, যে কোনো বিষয়ের চুলচেরা বিশ্লেষণ, বিতর্কে থাকে যুক্তি ও তত্ত্ব-উপাত্ত এবং তথ্যের সমারোহ। যুক্তি তর্কের নান্দনিক উপস্থাপনার কারণে বিতর্ক বোদ্ধারা অনেকেই বিতর্ককে ‘বিতর্ক শাস্ত্র’ বলে আখ্যায়িত করেন।

বিতর্কে থাকে প্রজ্ঞাপূর্ণ বচন ও অপর মতের প্রতি শ্রদ্ধার উদাহরণ (Sehemata)।

বিতার্কিক: যিনি প্রতিপক্ষকে সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা করে যৌক্তিক গঠনমূলক (Constructive) ও প্রজ্ঞাপূর্ণ (Sagacious) বিতর্ক করেন।

বিতর্ক: ইংরেজি প্রতিশব্দ Debate, যার আভিধানিক অর্থ তর্কাতর্কি, বাদানুবাদ, বিতর্ক, বাদপ্রতিবাদ, বাগবিতন্ডা ইত্যাদি। বিতর্ক শব্দটিকে বিশ্লেষণ করলে আমরা পাই- ‘বি’ যার অর্থ বিশ্লেষণ এবং ‘তর্ক’ যার অর্থ বাদানুবাদ। অর্থাৎ বিশেষ বাদানুবাদ বা আলোচনাকে বিতর্ক বলে।

বাংলা একাডেমি ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে (দশম মূদ্রণ-২০১০) বিতর্ক অর্থ তর্ক, আলোচনা, বাদানুবাদ, বিচার উল্লেখ করা হয়েছে।

সংজ্ঞা:
# যুক্তি, তথ্য ও তত্ত্বের সমন্বয় হলো বিতর্ক।
# যুক্তির আলোকে নিজের মত প্রতিষ্ঠিত করা ও ভিন্নমতকে গঠনমূলক পন্থায় সমালোচনার শিল্প হলো বিতর্ক।
# বিতর্ক হলো প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক জ্ঞান বিতরণী বিনোদন অনুষ্ঠান।
# সাবলিল, স্বচ্ছ ও প্রাঞ্জল কথার সমারোহ হলো বিতর্ক।
# রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক, আন্তর্জাতিক নেতৃত্বের শিক্ষা হলো বিতর্ক।
# বিতর্ক কারোর মতের শুধুই বিরোধিতা করা নয় বরং এর ভাষা যৌক্তিক ও সর্বজন বিদিত।
# Debate is a system of logic, system of presentation of an idea.

# বিতর্ক যেন একটি অভিযান, তার পদে পদে নব নব আবিষ্কার, নতুনতর অভিজ্ঞান। (সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী)

# যারা প্রশ্ন করতে শেখেনা তারা আধুনিক মানুষ নয়। বিতার্কিকরা প্রশ্ন করতে শেখে তাই তারা আধুনিক মানুষ। (সৈয়দ নজরুল ইসলাম)

সুতরাং বিতর্ক হচ্ছে যৌক্তিক শিল্প যা দ্বান্দ্বিক বা দ্বিমুখী বক্তৃতায় প্রাসঙ্গিক যুক্তি, তত্ত্ব-উপাত্ত ও প্রমাণ সহকারে একটি সুনির্দিষ্ট মত বোঝার লক্ষে প্রকাশিত হয়।

বির্তকের উপাদান:
# বিষয়
# দুটি পক্ষ
# যুক্তি ও প্রমাণ
# উদ্বুদ্ধকরণ

বিতর্কের আলঙ্কারিক পদ:
# উপস্থাপক
# স্পিকার/সভাপতি
# বিচারকমণ্ডলী
# সময় রক্ষক
# বিতার্কিকবৃন্দ
# দর্শক

বিতর্কের প্রকারভেদ:
# সনাতনী বিতর্ক
# সংসদীয় বিতর্ক (জাতীয় সংসদের প্রতীকী উপস্থাপনার প্রকাশ)
# ইউনাইটেড নেশন মডেল
# টি ফরম্যাট
# ওয়ার্ল্ড ফরম্যাট
# প্লানচেট বিতর্ক
# বারোয়ারি
# রম্য
# রাজনৈতিক
# কাব্য/ নাট্য বিতর্ক
# বজ্র
# পুঞ্জ
# আদালত মডেল
# আঞ্চলিক মডেল

তার্কিকের লক্ষণীয় বিষয়:
# তথ্যসমৃদ্ধ বক্তব্য প্রেরণ
# দলীয় সমন্বয় অক্ষুন্ন রাখা
# স্ক্রিপ্ট দেখে বলা থেকে বিরত থাকা
# নির্ধারিত বিষয়কে সাধারণভাবে না দেখে একটু আলাদা ভাবে দেখা
# দলের স্ট্যান্ড পয়েন্ট (Standpoint) ধরে রাখা
# সময়ের প্রতি লক্ষ রাখা
# সংসদীয় বিধি ও আচারণের প্রতি লক্ষ রাখা
# অসংযত আচরণ থেকে বিরত থাকা। (অসঙ্গত অঙ্গভঙ্গি না করা)
# শ্রোতা, বিচারক, স্পিকার ও বিপরীত দলের প্রতি নজর তথা eye contact রাখা
# চর্বিতচর্বন না করা অর্থাৎ একই কথা বারবার না বলা।
# সাউন্ড সিস্টেমের প্রতি নজর রাখা অর্থাৎ মাইক্রোফোনের উপযুক্ত ব্যবহার করা।

চলবে….

পরবর্তী পর্বে দক্ষ বিতার্কিকের গুণাবলী সহ পর্যায়ক্রমে বিতর্কের প্রকারভেদের বিস্তারিত আলোচনা প্রদান করা হবে।

 সূত্র :বিডিলাইভ

Leave a Reply